শার্শার রুদ্রপুরে দু’টি স্লুুইজ গেট অকেজো হওয়ায় ফসলের মাঠ পানিতে থৈ থৈ করছে

প্রকাশিত হয়েছে
মোঃ জমির হোসেন জেলা প্রতিনিধি :  যশোরের শার্শা উপজেলার কায়বা সীমান্তবর্তী রুদ্রপুর খালের ওপর নির্মিত দুটি স্লুুইজ গেট দির্ঘদিন ধরে অকেজো হয়ে পড়ে রয়েছে।
ফলে ভারতের ইছামতি নদীর পানি বিনা বাধায় খাল দিয়ে প্রবেশ করে হাজার হাজার হেক্টর ফসলী জমি প্লাবিত হচ্ছে। সেই সাথে অধিকাংশ বিলে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হচ্ছে। প্রায় ৬মাস পর্যন্ত জলাবদ্ধ থাকায় উপজেলার ৫২ টি বিলে ৪০/৪৫ বছর ধরে কোন আমন ফসলের চাষ হচ্ছে না বলে জানায় এলাকাবাসি।
স্থানীয়রা জানায়, ভারতের ইছামতি নদীর জোয়ারের পানি প্রতিরোধ করতে ১৯৮৬ সালে রুদ্রপুর খালের ওপর প্রথমে ৩ ব্যান্ড স্লুইজ গেট নির্মান করা হয়। কিন্তু ত্রুটিপুর্ন নির্মাণের ফলে পানি প্রতিরোধ করতে অক্ষম এই গেটটি। যার কারনে আগের মতই প্লাবিত হয়ে দুর্ভোগে পোহাতে হচ্ছে গোটা এলাকাবাসির।
এছাড়াও ১৯৯৫ সালে পাশে আরো একটি ৫ ব্যান্ড স্লুইজ গেট নির্মান করা হয়। সেটিও অচল হয়ে পড়ে থাকে। এরপর ২০০৬ সালে কয়েক লাখ টাকা ব্যায় করে গেটের নতুন পাল্লা লাগানো হয়। তাতেও পানি আটকানো সম্ভব না হওয়ায় আগের মতই কৃষকের ফসলের মাটঘাট ডুবতে থাকে।ভারতের জোয়ারের পনিতে এবছরও ৩ হাজার হেক্টর আবাদী জমি প্লাবিত হয়েছে।
শার্শা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা বলছেন, দক্ষিনাঞ্চলের ৩ হাজার হেক্টর আবাদী জমির ফসল ভারতের উজানের পানি ঢুকে নষ্ট হয়েছে।
উপসহকারী কৃষিকর্মকর্তা আনিছুর রহমান বলেছেন, বিভিন্ন মিডিয়ায় সংবাদ প্রকাশের পর আমি ও উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শৌতম কুমার শীল এলাকা পরিদর্শন করেছি। এসময় চাষীরা আমাদের জানিয়েছেন, স্লুইজ গেট দিয়ে ইছামতির পানি খাল দিয়ে বিলে ঢুকে পড়ছে। এরপর ডাঙা জমির আউস ধান সহ সব্জি ফসল ডুবিয়ে দিচ্ছে।
রুদ্রপুর গ্রামের শিরাজুল ইসলাম জানিয়েছেন ৫০ বছর ধরে ইছমতির পানিতে শার্শার বিস্তির্ন অঞ্চল প্লাবিত হলেও পানি উন্নয়ন বোর্ডের কোনো মাথা ব্যাথা নেই। তিনি আরও বলেন, নামমাত্র স্লুইজ গেট নির্মান করা হয়োছে। কিন্তু এর কোনো কার্যকারিতা বা সুফল পাইনি এলাকাবাসি। এমন কি এর কোনো গেট খালাশিও রাখা ছিলো না। থাকলেও হয়তো কাগজে কলমে ছিলো বাস্তবে আমরা দেখিনি।
স্থানীয় কাউন্সিলর হবিবর রহমান বলেন, সমস্যা সমাধান করতে হলে এখানে নতুন করে পাম্প সেটসহ সয়ংক্রীয় স্লুইজ গেট নির্মান করতে হবে। শুস্ক মৌসুমে পাম্পদিয়ে পানি ইছামতিতে ফেলতে হবে।এবং বর্ষা মৌসুমে জোয়ারের পানি কোনক্রমেই বিলে ঢুকতে না পারে তার নিশ্চয়তা করতে পারলে আগের মত বারো মাস ফসল হবে।

Calendder

October 2020
M T W T F S S
 1234
567891011
12131415161718
19202122232425
262728293031  

এখানে বিজ্ঞাপন দিন

এখানে বিজ্ঞাপন দিন

%d bloggers like this: