শিরোনাম

স্টাফ রিপোর্টার : পীর হতে গিয়ে কবরে প্রবেশ করে মৃত্যুর হাত থেকে বেঁচে ফিরেছেন হবিগঞ্জের এক ব্যক্তি।

ঘটনাটি ঘটেছে হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার শাহজানপুর ইউনিয়নের নোয়াগাঁও গ্রামে। ওই গ্রামের ইউছুফ আলী দীর্ঘদিন যাবৎ এলাকায় কবিরাজি করে আসছিলেন।

সাধারণ লোকজনকে পানি পড়া, তাবিজ, কবজ দিয়ে আসছিলেন।

হঠাৎ এলাকায় প্রচার করেন তিনি কবরের ভিতর যাবেন। ঘণ্টার পর ঘণ্টা কবরে থাকলেও তার কিছু হবে না। এই কথা শুনে এলাকার লোকজনের মধ্যে কৌতূহল সৃষ্টি হয়।

গত রোববার ইউছুফ আলী স্থানীয় চেয়ারম্যান তৌফিকুল আলম চৌধুরীর নিকট গিয়ে কবরের ভিতর প্রবেশের অনুমতি চাইলে চেয়ারম্যান তাকে কোনো অনুমতি দেননি। সেখান থেকে নিরাশ হয়ে তিনি গ্রামে ফিরে এসে স্বজনদের কবর খুঁড়তে বলেন।

এই খবর এলাকায় লোকজনদের মধ্যে প্রচার হলে শতাধিক উৎসুক জনতা তার এই কবরে প্রবেশ করার দৃশ্য দেখতে ভারতীয় সীমান্তবর্তী গ্রাম নোয়াগাঁও গ্রামের ভিড় করেন।

একপর্যায়ে ইউছুফ আলী মৃত্যুর ঝুঁকি নিয়ে তিনি কবরে প্রবেশ করেন। তারপর স্বজনরা কবরটির ওপরে প্রথমে বাঁশের চাটাই, তারপর পলিথিন ও সব শেষে মাটিচাপা দিয়ে দেন। তবে মাটির ওপর দিয়ে কয়েকটি ছোট ছোট ছিদ্র রাখা হয়।

মাটিচাপা দেয়ার কয়েক মিনিট পর কবরের ভিতর তার কোনো সাড়া শব্দ না পেয়ে চিন্তিত হয়ে পড়েন তার স্বজনরা। ছিদ্র দিয়ে দেখেন তিনি অজ্ঞান হয়ে গেছেন।

দ্রুত স্বজনরা মাটি ও পলিথিন, বাঁশের চাটাই সরিয়ে কবরের ভিতর তাকে অজ্ঞান অবস্থায় দেখতে পান। সঙ্গে সঙ্গে স্বজনরা ও স্থানীয় লোকজন তাকে কবর থেকে টেনে উপরে তুলেন। এর পর থেকেই অসুস্থ হয়ে ইউছুফ আলী বাড়িতে আছেন।

এই ঘটনাটি মঙ্গলবার রাতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে মাধবপুর সর্বত্র আলোচনার ঝড় সৃষ্টি হয়।

স্থানীয় ব্যক্তি মাসুক খান জানান, নিজেকে পীর বা সাধক বোঝাতে কবর খুঁড়ে এর ভিতর শুয়ে পরেন ইউছুফ আলী। কবরের ভিতর ১০/১৫ মিনিট থাকার পর তার স্বজনরা ছিদ্র দিয়ে দেখেন তার অবস্থা খারাপ। দ্রুত মাটি সরিয়ে তাকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করেন তারা। তিনি জনগণকে বোঝাতে চেয়েছিলেন তিনি বড় সাধক। এটি সফল হলে জনগণ তার প্রতি আস্তা তৈরি হতো। আর তার কবিরাজি ব্যবসা ভালো চলত। এটি একটি কুসংস্কার।

শাহজাহানপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তৌফিকুল আলম চৌধুরীর সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, ইউছুফ আলী তার কাছে কবরে এ প্রবেশ করার অনুমতি নিতে গেলে তিনি থানায় ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট থেকে অনুমতি নিতে পরামর্শ দেন।

স্টাফ রিপোর্টার : নারায়ণগঞ্জ শহরের বাবুরাইল এলাকায় ধসে পড়েছে ৪ তলার একটি ভবন। এতে একজন মারা গেছে বলে জানা গেছে ও কয়েকজন আহত হয়েছে।

রোববার (৩ নভেম্বর) বিকাল ৪টার দিকে ওই ভবনটি ধসে পড়ে।

স্থানীয়রা জানান, বাবুরাইল এলাকাতে একটি খালের ওপর ধসে পড়ে। এ ঘটনায় একজনের মৃত্যু হয়েছে ও কয়েকজন আহত হয়েছে। ভবনের ভেতরে আরও কয়েকজন থাকতে পারে ধারণা করা হচ্ছে।

নারায়ণগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের উপ-সহকারী পরিচালক আবদুল্লাহ আরেফিন জানান, বিকাল ৪টায় হঠাৎ করে চার তলা নির্মাণাধীন একটি ধসে পড়েছে। ফায়ার সার্ভিসের টিম উদ্ধার কাজ শুরু করেছে।

সাভার প্রতিনিধিঃ সাভারের নামাগেন্ডা এলাকার একটি পরিত্যক্ত ডোবা থেকে তৌহিদুল ইসলাম (৪৫) নামে এক ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। নিহতের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

রবিবার (৩ নভেম্বর) দুপুরে নামাগেন্ডা তারা মসজিদ সংলগ্ন বাদশা মিয়ার পরিত্যক্ত ডোবা থেকে ভাসমান অবস্থায় মরদেহটি উদ্ধার করা হয়।

নিহত তৌহিদুল ইসলাম ওরফে ওহিদুল ইসলাম খাজা নামে ওই ব্যক্তি দিনাজপুর জেলার বাসিন্দা। সে সাভারের গেন্ডা এলাকার মুক্তিযোদ্ধা শামসুল হকের বাড়িতে ভাড়া থেকে রিকশা চালাতেন বলে প্রাথমিক ভাবে জানা গেছে।

সাভার মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) অপূর্ব দত্ত বলেন, দুপুরে নামাগেন্ডা এলাকায় বাদশা মিয়ার পরিত্যক্ত ডোবায় কচুরিপানার নিচে এক ব্যক্তির মরদেহ ভাসতে দেখে পুলিশে খবর দেয় স্থানীয়রা। পরে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়।

তিনি আরো বলেন, শ্বাসরোধ করে হত্যার পর ওই ব্যক্তির মরদেহ রাতের কোন সময় এখানে ফেলে রেখে ‍যাওয়া হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। প্রাথমিক ভাবে নিহত ব্যক্তি রিকশাচালক বলেও জানা গেছে। এঘটনায় থানায় একটি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলেও জানান তিনি।

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :    তুরস্ক-সিরিয়া সীমান্তে শনিবার একটি গাড়িবোমা হামলার ঘটনায় অন্তত ১৩ জন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

তুরস্কের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে গণমাধ্যম জানায়, শনিবারের গাড়িবোমা হামলায় কুর্দি অধ্যুষিত সিরিয়ার তেলআবিয়াদ শহরে অন্তত ১৩ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও কমপক্ষে ২০ জন। খবর রয়টার্সের।

তেলআবিয়াদ শহর আগে কুর্দিদের নিয়ন্ত্রণ থাকলেও সম্প্রতি তুরস্কের সামরিক অভিযানে সেখান থেকে তারা বেশিরভাগই পালিয়েছে।

তুরস্কের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়, বিস্ফোরণের ঘটনায় অন্তত ১৩ বেসামরকি নাগরিক নিহত এবং ২০ জনের মতো আহত হয়েছেন।

এ হামলার নিন্দা জানিয়েছে তুরস্কের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়। তারা বলেছেন, আমরা এ হামলার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। এটি সম্পূর্ণ ‘অমানবিক হামলা’।

এ হামলার জন্য কুর্দিস্তান ওয়ার্কার্স পার্টি (পিকেকে) এবং কুর্দিশ পিপলস প্রটেকশন ইউনিটসকে (ওয়াইপিজি) দায়ী।

তবে এ হামলার দায়ভার এখনও কেউ স্বীকার করেননি। সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস জানায়, গাড়িবোমা হামলায় নিহত-আহতরা তুরস্কপন্থী যোদ্ধা ও বেসামরিক নাগরিক।

এর আগে গত ৭ অক্টোবর সিরিয়ার উত্তর-পূর্বাঞ্চল থেকে নিজেদের সেনাবাহিনী প্রত্যাহারের ঘোষণা দেয় যুক্তরাষ্ট্র। তার ঠিক দুদিন পরই ৯ অক্টোবর সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে কুর্দি যোদ্ধাদের বিরুদ্ধে সেনা অভিযান চালায় তুরস্ক।

প্রাণেরদেশ ডেস্ক : ভারতের মাঠে রোহিত শর্মাদের হারিয়ে ইতিহাস গড়ল বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। টেস্ট, ওয়ানডে আর টি-টোয়েন্টি তিন ফরম্যাটে অতীতে ভারতের মাঠে জয় পায়নি বাংলাদেশ। ভারতের মাঠে জয় না পাওয়ার সেই খড়া কাটালেন মুশফিকুর রহিম। তার ব্যাটে ভারত জয় করল বাংলাদেশ।

তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম খেলায় ভারতকে ৭ উইকেটে পরাজিত করে বাংলাদেশ। দলের জয়ে দুর্দান্ত ব্যাটিং করেন মুশফিকুর রহিম। তার ৪৩ বলের অপরাজিত ৬০ রানের দায়িত্বশীল ইনিংসে ভর করে জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় বাংলাদেশ।

তার আগে ভারত জয়ের ভিত গড়ে দেন আমিনুল ইসলাম বিপ্লব ও শফিউল ইসলামরা। তাদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ের সামনে ১৪৮ রানে ইনিংস গুটায় ভারত।

ভারতের বিপক্ষে ১৪৯ রানের সহজ টার্গেট তাড়া করতে নেমে শুরুতে উইকেট হারান লিটন কুমার দাস। দলীয় ১০ রানে ফেরেন তিনি। এরপর অভিষিক্ত মোহাম্মদ নাইমকে সঙ্গে নিয়ে ৪৬ রানের জুটি গড়েন অন্য ওপেনার সৌম্য সরকার। ২৮ বলে ২৬ রান করে ফেরেন নাইম।

এরপর সৌম্য সরকারের সঙ্গে ৬০ রানের জুটি গড়েন মুশফিক। তাদের জুটিতেই জয়ের স্বপ্ন দেখে বাংলাদেশ। জয় থেকে ৩৫ রান দূরে থাকতেই আউট হন সৌম্য। খলিল আহমেদের বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন ৩৫ বলে ৩৯ রান করা সৌম্য।

তবে সৌম্যর বিদায়ের পর মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে সঙ্গে নিয়ে দলকে জয়ের বন্দরে পৌঁছেদেন মুশফিক।
ভারত ১৪৮/৬

শক্তিশালী ভারতকে তাদের মাঠেই কোণঠাসা করে রাখেন আমিনুল ইসলাম বিপ্লব ও আফিফ হোসেনরা। বাংলাদেশ দলের এ তরুণ বোলারদের মোকাবেলা করতে বেশ হিমশিম খেতে হয় রোহিত শর্মার মতো ভারতীয় অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যানদের।

সাকিব-তামিমহীন তারুণ্য নির্ভর বাংলাদেশ দলের বিপক্ষে প্রত্যাশার ব্যাটিং করতে পারেনি ভারত। ঘরের মাঠে বাংলাদেশের বিপক্ষে ব্যাটিংয়ে নেমে সময়ের ব্যবধানে উইকেট হারিয়ে কোণঠাসা হয়ে যায় স্বাগতিকরা।

তবে ওপেনার শেখর ধাওয়ানের দায়িত্বশীল ব্যাটিং আর শেষ দিকে করুনাল পান্ডিয়া ও ওয়াশিংটন সুন্দরের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে শেষ পর্যন্ত ৬ উইকেটে ১৪৮ রান তুলতে সক্ষম হয় বিশ্বের অন্যতম সেরা দল ভারত।

রোববার দিল্লির অরুন জেটলি স্টেডিয়ামে টস জিতে প্রথমে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেন বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।

তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টিতে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই বিপদে পড়ে যায় স্বাগতিকরা। ভারত শিবিরে শুরুতেই আঘাত হানেন শফিউল ইসলাম।

ভারত সেরা ওপেনার রোহিত শর্মাকে ইনিংসের প্রথম ওভারে ফেরান শফিউল। তার করা ইনিংসের প্রথম ওভারের শেষ বলে এলবিডব্লিউ হন রোহিত। আউটের সিদ্ধান্ত দিতে সময় নেননি আম্পায়ার। রিভিউ নিয়েও উইকেট বাঁচাতে পারেননি বিরাট কোহলির পরিবর্তে ভারতীয় দলকে নেতৃত্ব দেয়া রোহিত শর্মা। দলীয় মাত্র ১০ রানে সাজঘরে ফেরেন তিনি।

এরপর তিনে ব্যাটিংয়ে নামা লোকেশ রাহুলকে সঙ্গে নিয়ে দলকে খেলায় ফেরাতে চেষ্টা করেন অন্য ওপেনার শেখর ধাওয়ান। ২০ রানের ব্যবধানে আউট হয়ে ফেরেন রাহুল।

বাংলাদেশ দলের তরুণ লেগ স্পিনার আমিনুল ইসলাম বিপ্লব নিজের প্রথম ওভারে বোলিংয়ে এসেই তুলে নেন রাহুলের উইকেট। তার করা সপ্তম ওভারের তৃতীয় বলে শর্ট কাভারে ফিল্ডিং করা অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের হাতে ক্যাচ তুলে দিয়ে ফেরেন রাহুল। তার বিদায়ে ৬.৩ ওভারে ৩৬ রানে ২ উইকেট হারায় ভারত।

এরপর ভারতীয় তরুণ তারকা ব্যাটসম্যান স্রেয়াশ আয়ারকে দ্বিতীয় শিকারে পরিণত করেন বিপ্লব। তার বলে বাউন্ডারি হাঁকাতে গিয়ে অভিষিক্ত মোহাম্মদ নাইমের হাতে ক্যাচ তুলে দিয়ে ফেরেন স্রেয়াশ।

ইনিংসের শুরু থেকে দায়িত্বশীল ব্যাটিং করে যাওয়া শেখর ধাওয়ানকে রান আউটের ফাঁদে ফেরেন বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক রিয়াদ। তার আগে ৪২ বলে ভারতের হয়ে সর্বোচ্চ ৪১ রান করে ফেরেন শেখর।

জাতীয় দলের তরুণ অলরাউন্ডার আফিফ হোসেনের দুর্দান্ত ক্যাচে পরিনত হয়ে সাজঘরে ফেরেন শুভম দুবে। বাংলাদেশ সিরিজে অভিষেক হওয়া ভারতীয় এ তরুণকে ক্যারিয়ারের শুরুর ম্যাচে মাত্র ১ রানে আউট করেন আফিফ।

বাংলাদেশ দলের এ তরুণ অলরাউন্ডারের অফ স্পিনে বিভ্রান্ত হয়ে উইকেটের ওপর ক্যাচ তুলে দেন শুভম। বল ডেলিভারি দেয়ার পরও সামান্য ওপরে ওঠা বলটি দক্ষতার সঙ্গে তালুবন্দি করেন আফিফ। দলীয় ১০২ রানে ভারতীয় পঞ্চম ব্যাটসম্যান হিসেবে সাজঘরে ফেরেন শুভম। ২৬ বলে ২৭ রান করা রিশব প্যান্টকে দ্বিতীয় শিকারে পরিনত করেন শফিউল।

১৮.২ ওভারে ৬ উইকেটে ১২০ রান করা ভারতকে সম্মানজনক অবস্থানে নিয়ে যেতে শেষ দিকে ব্যাটিং তাণ্ডব চালান করুনাল পান্ডিয়া-ওয়াশিংটন সুন্দর। তারা শেষ দিকে মাত্র ১০ বল মোকাবেলা করে এক চার ও তিন ছক্কায় ২৮ রান তুলে নেন। তাদের কারণেই ১৪৮ রান তুলতে সক্ষম হয় ভারত।

মাহমুদ রাসেল : নারায়ণগঞ্জের আলোচিত এসপি হারুন অর রশিদকে পুলিশ অধিদফতরে বদলি করা হয়েছে। রোববার (৩ নভেম্বর) স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক প্রজ্ঞাপনে বদলি করে তাকে পুলিশ অধিদফতরে পুলিশ সুপার (টিআর) পদে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

হারুন ২০১৮ সালের ২ ডিসেম্বর নারায়ণগঞ্জের এসপি হিসেবে দায়িত্ব নিয়েছিলেন। তার আগে ২০১৪ সালের ২৪ আগস্ট পুলিশ সুপার হিসেবে গাজীপুরে যোগদান করেন তিনি।

২০১৬ সালে ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনের তৃতীয় দফায় গাজীপুর সদর, শ্রীপুর ও কাপাসিয়ায় ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে নির্বাচন কমিশনের নির্দেশনা অনুযায়ী ওই বছরের ২১ এপ্রিল এসপি হারুন অর রশিদকে গাজীপুর থেকে প্রত্যাহার করা হয়েছিল। নির্বাচন সম্পন্ন হওয়ার পর প্রত্যাহারের আদেশ তুলে নিয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় তাকে ওই বছরের ৩ মে গাজীপুরের পুলিশ সুপার পদে পুনর্বহাল করেন। দুই দফা মিলিয়ে চার বছর গাজীপুরে ছিলেন তিনি।

এসপি হারুন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সমাজ বিজ্ঞানে অনার্স ও মাস্টার্স ডিগ্রি লাভ করে ২০তম বিসিএসের মাধ্যমে ২০০১ সালে এএসপি হিসেবে পুলিশে যোগদান করেন।

নিজস্ব প্রতিবেদক : “বঙ্গবন্ধুর দর্শন, সমবায় উন্নয়ন” এই প্রতিপাদ্য বিষয়কে সামনে নিয়ে নরসিংদীর পলাশে ৪৮ তম জাতীয় সমবায় দিবস পালিত হয়েছে।

আজ শনিবার (০২ নভেম্বর) সকালে দিবসটি পালন উপলক্ষে উপজেলা সমবায় বিভাগের আয়োজনে এক বর্ণাঢ্য র‍্যালী উপজেলা চত্বর থেকে বের হয়। র‍্যালীটি উপজেলার বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে উপজেলা পরিষদ সম্মেলন কক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

পলাশ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুমান ইয়াসমিন এর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন পলাশ উপজেলা চেয়ারম্যান সৈয়দ জাবেদ, বিশেষ অতিথি ঘোড়াশাল পৌর মেয়র আলহাজ্ব শরীফুল হক। আরো বক্তব্য রাখেন পলাশ উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি এস. এম শফি ও শিক্ষক প্রতিনিধি মোস্তাফিজুর রহমান রুবেল।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, পলাশ উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান কারীউল্লাহ সরকার, উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা নাছিমা শাহীন, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ আমিরুল ইসলাম প্রমুখ।