শিরোনাম

প্রাণেরদেশ ডেস্ক : আগামী নভেম্বরে ভারতের বিপক্ষে সিরিজে কঠিন এক চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে হবে বাংলাদেশকে। তবে সিরিজ শুরুর আগেই দলে আনতে হচ্ছে পরিবর্তন। সন্তান সম্ভবা স্ত্রীকে সময় দিতে খেলবে না ওপেনার তামিম ইকবাল। ইনজুরির কারণে দল থেকেই ছিটকে গেছেন পেস বোলিং অলরাউন্ডার মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। তাই আবশ্যিকভাবেই দলে পরির্তন আনতে হচ্ছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডকে (বিসিবি)।
তামিমের পরিবর্তে ইমরুল কায়েসকে অনুশীলনে আনা হলেও শেষ পর্যন্ত হয়তো তাকে না-ও নেওয়া হতে পারে। সাইফউদ্দিনের পরিবর্তে কাকে নেওয়া হবে সেটাও নিশ্চিত করা হয়নি। সোমবার (২৮ অক্টোবর) সংবাদ সম্মেলনে বিসিবির ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের চেয়ারম্যান আকরাম খান জানান, টি-টোয়েন্টি দল ঘোষণা দিতে একটু দেরি হবে।
তিনি বলেন, ‘আমরা টি-টোয়েন্টি দল মঙ্গলবার (২৯ অক্টোবর) দুপুর ১২-১টার দিকে ঘোষণা দেবো। আমাদের টেস্ট দল ঘোষণা দিতে কিছু সময় লাগবে। আগামী দুই-তিন দিন পর আমরা ঘোষণা দেবো। টি-টোয়েন্টি দলের ব্যাপারে অভ্যন্তরীণ কিছু ব্যাপার আছে এ জন্যই আমরা একদিন পিছিয়েছি। যেহেতু দুই একটা পরিবর্তন আসছে যেমন তামিম যাচ্ছে না সাইফউদ্দিনের ইনজুরি সেক্ষেত্রে আমরা একটু চিন্তা ভাবনা করেই দিচ্ছি।’
আগামী ৩ নভেম্বর টি-টোয়ন্টি ম্যাচ দিয়ে শুরু হবে বাংলাদেশ দলের ভারত সফর। ০৭ ও ১০ নভেম্বর হবে বাকি দু’টি টি-টোয়েন্টি। ১৪ এবং ২২ নভেম্বর হবে দু’টি টেস্ট ম্যাচ।

স্টাফ রিপোর্টার  : ‘ঢাকা শহরে একসময় বড় বড় গডফাদার ছিল। তাদের কাছে কোটি কোটি টাকা ছিল। আজকে কোটি কোটি টাকা তাদের কোন কাজে আসে নাই। তাদের জেলে যেতে হয়েছে। তাদের স্বরূপ কিন্তু বাংলার মাটিতে উন্মোচিত হয়েছে। নারায়ণগঞ্জেও অনেকে জেলে গিয়েছেন।

অপরাধ করে কেউ পারবে না। যারা অপরাধ করছেন, তারা মনে করছেন আমাকে কেউ দেখছে না। কিন্তু অপরাধীর এমন সময়  আসবে আপনি কখনই পার পাবেন না। অবশ্যই আইনের আওতায় আসতে হবে। জনপ্রতিনিধি হবেন আবার মাদক ব্যবসা করবেন এটা হবে না। কথায় কাজে মিল থাকতে হবে।

সোমবার(২৮ অক্টোবর)  সন্ধায় পালপাড়া এলাকায় নব উদয় সার্বজনীন পূজা কমিটির উদ্যোগে আয়োজিত পূজা মন্ডপ পরিদর্শন করতে গিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

এসপি হারুন বলেন,হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান যত ধর্ম রয়েছে সর্ব ধর্মের মূলই বাণী অন্যায় অবিচার ও বিভিন্ন ধরনের অনাচারকে দূর করে অন্ধকার থেকে বের হয়ে আসা। সমাজের রন্ধ্রে রন্ধ্রে অপরাধ রয়েছে, আমাদের সমাজের রন্ধ্রে রন্ধ্রে নারী নির্যাতন রয়েছে, শিশু নির্যাতন হচ্ছে, আমাদের সমাজে মাদক ব্যবসা হচ্ছে, মাদকাসক্তের কারণে সমাজের উঠতি বয়সের সন্তানেরা নষ্ট হচ্ছে।

আজকের অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সমাজে দ্বীপ জালাতে চাচ্ছেন, আপনারা স্বাগত জানাবেন ভাল এবং সৎকাজকে। এটা কিন্তু সকল ধর্মের মূলকথা। সকল ধর্মে অসৎ কাজ থেকে দূরে থাকা, ভাল চিন্তা করা, শিশু সন্তানের ভালভাবে গড়ে তুলা। প্রত্যেক উৎসবের মূলকেন্দ্র অন্যায়ের বিরুদ্ধে। যত অনুষ্ঠান রয়েছে সকল অনুষ্ঠানের মূল কাজ হচ্ছে অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করা।

তিনি বলেন, ‘সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে, চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে, যারা স্কুল কলেজে না গিয়ে রাস্তায় দাঁড়িয়ে ইভটিজিং করে, তাদের বিরুদ্ধে আমাদের সংগ্রাম।

আমরা খারাপকে দূর করবো। স্বল্প পুলিশ দিয়ে বৃহৎ পরিসরে অন্যায় কাজ দূর করা যাবে না। মাদক দূর করা যাবে না। সন্ত্রাসী কার্যক্রম দূর করা যাবে না। সমাজের প্রতিটি মানুষ যখন আমাদের সাথে একাত্মতা পোষণ করে কাজ করবে গুটি কয়েক সন্ত্রাসী কিন্তু এলাকায় থাকতে পারবে না।

আমরা সে লক্ষ্যেই আছি আপনাদের সাথে। ভালো কাজের জন্য আপনাদের সাথে আমরা আছি। সমাজের আশে পাশে যদি আপনাদের মনে হয় ওই লোকটি মাদক ব্যবসা করে কিন্তু তার লেবাস হচ্ছে, সে একজন বড় নেতা। তাহলে সে নেতাকে আমরা ছাড় দিব না। তাকে অবশ্যই আমরা আইনের আওতায় নিয়ে আসবো।’

নারায়ণগঞ্জ হচ্ছে সকল ধর্মের মানুষের মিলনমেলা মন্তব্য করে নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার হারুন অর রশিদ বলেছেন, নারায়ণগঞ্জ শুধু ঐতিহাসিকভাবে শিল্পনগরী নয়,  এখানে সকল ধর্মের মানুষ তার অধিকার, তার কথা তার চালচলন নির্দ্বিধায় পালন করতে পারে।

আমরা পুলিশ বাহিনী আপনাদের কাজে অংশগ্রহণ করতে পেরে নিজেকে গর্ববোধ মনে করি। যারা এই পূজার আয়োজন করেছেন তাদেরকে আমি ব্যক্তিগতভাবে ও নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে ধন্যবাদ জানাই। আমরা উৎসবটাকে নিজের মতো মনে করি। উৎসবটাকে উপভোগ করি। ভাললাগে উৎসবে গেলে। আমরা প্রত্যেকটি পূজামন্ডপে গিয়েছি।

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ নুরে আলম, নারায়ণগঞ্জ অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুবাস চন্দ্র সাহা, জেলা পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট ওয়াজেদ আলী খোকন, ১৪ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শফিউদ্দিন প্রধান।

নারায়ণগঞ্জ সদর থানা ওসি আসাদুজ্জামান, নারায়ণগঞ্জ জেলা হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান পরিষদের সাধারণ সম্পাদক প্রদীপ কুমার দাস, মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি অরুন কুমার দাস, সাধারণ সম্পাদক উত্তম সাহা, জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি দীপক সাহা ও সাধারণ সম্পাদক শিপন সরকার শিখন।

মাহমুদ রাসেল  : নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে দেশের অন্যতম পাইকারি কাপড়ের মার্কেটের পাশে খাবার হোটেলসহ তিনটি প্রতিষ্ঠান আগুনে পুড়ে যায়। সোমবার রাত সাড়ে ৯ টার দিকে ভুলতা গাউছিয়া মার্কেটের পাশে এ অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। অগ্নিকান্ডে পুড়ে যাওয়া হোটেল গুলো হলো সেবা হোটেল ও জিএসপি হোটেল, মার্জিয়ার ষ্টোর।

স্থানীয় ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সোমবার রাত সাড়ে ৯ টার দিকে গাউছিয়া মার্কেটের পাশে সেবা হোটেলে হঠাৎ করে আগুন লেগে যায়। পরে আগুনের লেলিয়াংশ চারদিকে ছড়িয়ে পড়তে থাকলে স্থানীয়রা ফায়ার সার্ভিসে খবর দেয়।

এশিয়ান হাইওয়ের দীর্ঘ যানজটের কারণে কাঞ্চন ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে পৌছাঁতে পারেনি। স্থানীয়রা পানি দিয়ে প্রায় ১ ঘন্টা চেষ্টার পর সাড়ে ১০ টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনতে সক্ষম হয়। ততক্ষণে সেবা হোটেল, জিএসপি হোটেল ও মাজিয়া ষ্টোর নামে তিনটি প্রতিষ্ঠান পুড়ে ছাই হয়ে যায়।

স্থানীয়রা আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার পর ডেমরা ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট ঘটনাস্থলে এসে পৌছাঁয় এ সময়  আগুনে পুড়ে ৩ টি প্রতিষ্ঠানের প্রায় মোট ১২ লাখ টাকার  ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি করেন ক্ষতিগ্রস্ত মালিকরা। ক্ষতিগ্রস্ত প্রতিষ্ঠান গুলোর ১২ ফুট সামনেই গাউছিয়া মার্কেট। এ মার্কেটে প্রায় ৬ হাজার দোকান রয়েছে।

ডেমরা ফায়ার সার্ভিসের ইনচার্জ আব্দুল মান্নান বলেন, বর্তমানে আগুন নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। আমরা ঘটনাস্থলে পৌছাঁনো আগেই স্থানীয়রা আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়েছে। কি কারণে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে তা এখনো জানা যায়নি।

  মাহমুদ রাসেল :  পুলিশ সুপার (এসপি) পদমর্যাদার ৮ পুলিশ কর্মকর্তা অতিরিক্ত উপ-পুলিশ মহাপরিদর্শক (অতিরিক্ত ডিআইজি) পদে পদোন্নতি পেয়েছেন।

সোমবার (২৮ অক্টোবর) স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পুলিশ অধিশাখা-১ এর উপ-সচিব ধনঞ্জয় কুমার দাস স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে এই তথ্য জানানো হয়।

পদোন্নতিপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা হলেন- যশোর জেলার পুলিশ সুপার মঈনুল হক, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার পুলিশ সুপার টি এম মোজাহিদুল ইসলাম, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার মো. ইলিয়াছ শরীফ, চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার শ্যামল কুমার নাথ, চট্টগ্রাম জেলার পুলিশ সুপার নুরে আলম মিনা, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার মো. জাকির হোসেন খান, পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের সহকারী পুলিশ মহাপরিদর্শক মো. আনোয়ার হোসেন খান, এবং ময়মনসিংহ জেলার পুলিশ সুপার মো. শাহ আবিদ হোসেন বিপিএম।

 

মোঃ রবিউল আউয়াল রবি : ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা উপজেলার কুমারগাতা গ্রামের তেউর পাড়ায় দিনে-দুপুরে এক বুদ্ধি প্রতিবন্ধী কিশোরী (১০) ধর্ষিত হয়। এ ঘটনায় ওই প্রতিবন্ধীর বাবা মুক্তাগাছা থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ২০০০(সং-০৩) এর ৯(১) ধারায়,মামলা নং-২২, ২০/০৫/১৭ সালে একটি মামলা দায়ের করে । প্রতিবেশী ধর্ষক সুমন মিয়া(৩০) বিরুদ্ধে।

এলাকার কয়েকজন বাসিন্দা সূত্রে জানা যায়, ওই প্রতিবন্ধী কিশোরীর বাবা-মা বিভিন্ন জায়গায় কাজ করেন। প্রতিদিনের মতো ১৪/০৫/১৭ তারিখে তাঁরা দুইজনই মেয়েকে বাড়িতে রেখে কাজে চলে যান। এ সুযোগে পাশের বাড়ির দুই সন্তানের পিতা সুমন মিয়া মেয়েকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে কিছুটা দূরে কলা বাগানে জোর পূর্বক ধর্ষন করে।

তার ডাক-চিৎকারে পাশের বাড়ির শিল্পী নামে এক প্রতিবেশী গুরুতর অবস্থায় উদ্ধার করে । পরবর্তীতে ঘটনাটি এলাকায় জানাজানি হলে ধর্ষক পালিয়ে যায় ।বিষয়টি নিয়ে একদিন পর এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিরা শালিশের মাধ্যমে পচিশ হাজার টাকায় মিমাংসা করতে চাইলে বাদী তাতে রাজী না হয়ে ন্যায় বিচারের আশায় থানা পুলিশের শরণাপ্ন হয়।
থানা পুলিশের ব্যর্থতায় আসামী দীর্ঘদিন ধরা-ছোঁয়ার বাহিরে থেকে শেষমেশ আদালতে  আত্নসমর্থন করে জামিনে বের হয়ে যায়।

মুক্তাগাছা থানা পুলিশ প্রাথমিকভাবে তদন্ত সাপেক্ষে ২২/০৯/১৭ তারিখে অভিযোগপত্র নং-২৫১, আদালতে দাখিল করে। মামলার দীর্ঘসূত্রিতার কারণে দুই বছর পেরিয়ে গেলেও কিশোরী পায়নি বিচার। অপরদিকে নির্যাতিতার দাদা জানান, আসামী ও তার পরিবারের লোকজন প্রভাবশালী হওয়ায় নানা ভাবে মামলা তুলে নিতে হুমকি দিয়ে আসছে, আমরা খুব আতংকে জীবন-যাপন করছি।

কিশোরীর বাবা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, আমি আইনের কাছে এই নিষ্ঠুরতার কঠিন বিচার চাই ,আর যাতে কেউ কোন মেয়ের জীবন নষ্ট না করতে পারে।

মেয়ের মা বলেন, আমরা বাড়িতে থাকতে ভয় পাই সুমনের বউ ও তার লোকজন বিভিন্নভাবে ভয়ভীতি দেখাচ্ছে কেন মামলা তুলে নিচ্ছি না ।

আমার দাবী যাতে সরকার আমাদের ন্যায় বিচার দেয়। এলাকাবাসীর দাবী যাতে খুব দ্রুত আইনের আওতায় এই ধর্ষকের বিচার হয়।

 নিজস্ব প্রতিবেদক : ভোলার লালমোহনে জসিম নামে এক ব্যক্তিকে তার দুই সন্তানের সামনে হাত-পা বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন চালানো হয়েছে। পরে এই নির্যাতনের ভিডিও ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে। রবিবার (২৭ অক্টোবর) রাতে অভিযুক্ত কালমা ইউনিয়নের চিহ্নিত ইয়াবা ব্যবসায়ী ও ডাকাতি মামলার আসামি হাসানকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

ভিডিওতে দেখা গেছে, উপজেলার ডাওরী বাজারে একই ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা জসিমকে জনসম্মুখে নির্যাতন করা হচ্ছে। সেখানে তার দুই সন্তানও ছিল।

জানা গেছে, জসিমকে দীর্ঘদিন ধরে ইয়াবা বিক্রির জন্য নানাভাবে প্রস্তাব দিয়ে আসছিল হাসান। তিনি প্রস্তাবে রাজি না হলে ডাওরী বাজারে জনসম্মুখে হাত-পা বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন করে হাসান।

লালমোহন থানার অফিসার ইনচার্জ মীর খায়রুল কবীর জানান, ভিডিওটি ২০১৮ সালের। হাসানকে রবিবার রাতে ডাকাতি মামলায় গ্রেফতারের পর এ ভিডিওটি ছাড়া হয়েছে।

 

রবিউল আউয়াল রবি : ময়মনসিংহে সংগঠনের ৪১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষ্যে মহানগর যুবদলের দুই গ্রুপে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছে এক পুলিশ সদস্য। এ সময় পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে  পুলিশ টিয়ারসেল ও ফাঁকা গুলি নিক্ষেপ করে। এ ঘটনায় মহানগর যুবদলের সাধারন সম্পাদক জোবায়ের হোসেন শাকিলসহ ৪ নেতা-কর্মীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।রবিবার দুপুরে ময়মনসিংহ নগরীর হরিকিশোর রায় রোডস্থ দক্ষিণ জেলা বিএনপি কার্যালয়ের সামনে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় যুবদল নেতা-কর্মীদের মধ্যে গ্রেফতার আতংক বিরাজ করছে।

দলীয় সূত্র জানায়, রবিবার দুপুর ১২টার দিকে জাতীয়তাবাদী যুবদলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষ্যে দক্ষিণ জেলা যুবদলের সভাপতি রুকনুজ্জামান সরকার রোকন ও সাধারন সম্পাদক অ্যাড.দিদারুল ইসলাম রাজুর নেতৃত্বে দলীয় কার্যালয়ে শান্তিপূর্ন ভাবে কেক কেটে সমাবেশ করে যুবদল।

এর কিছুক্ষন পর মহানগর যুবদলের সাধারন সম্পাদক জোবায়ের হোসেন শাকিলের নেতৃত্বে দলীয় কার্যালয়ের সমানে সমাবেশ করে যুবদলের একাংশ। এ সময় পৃথক ভাবে একই কর্মসূচী পালনের জন্য দলীয় কার্যালয়ের ভেতরে অপেক্ষমান ছিলেন মহানগর যুবদলের সভাপতি মোজাম্মেল হক টুটু গ্রুপের সমর্থকরা।

এ সময় প্রশাসনিক পরিস্থিতি বিবেচনায় দ্রুত অনুষ্ঠান শেষ করার জন্য অনুরোধ জানালেও যুবদল নেতা শাকিল বক্তৃতা  দীর্ঘায়িত করায় সংগঠনের সভাপতি টুটু গ্রুপের সমর্থকরা ক্ষিপ্ত হলে দু’পক্ষের মাঝে বিচ্ছিন্ন সংর্ঘষের ঘটনা ঘটে।

এ সময় ছুঁড়া ইটের আঘাতে রক্তাক্ত আহত হন পুলিশ সদস্য আবু হানিফ(৩০)সহ বেশ কয়েক জন যুবদল নেতা-কর্মী ও সমর্থক। এ ঘটনায় হঠাৎ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে নিতে কয়েক রাউন্ড টিয়ার সেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে বলে নিশ্চিত করেছে প্রত্যক্ষদর্শীরা। তবে অপ্রত্যাশিত এ সংঘর্ষের ঘটনায় প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর কর্মসূচী পালনে বেকাদয় পড়ে যান জেলা উত্তর যুবদলের নেতা-কর্মীরা।

পরে তারা দলীয় কার্যালয়ের ভেন্যু পরিবর্তন করে নগরীর চরপাড়া এলাকায় সংগঠনের সভাপতি ভিপি শামছুল হক শামছুু এবং সাধারন সম্পাদক রবিউল করিম বিপ্লবের নেতৃত্বে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষ্যে র‌্যালী করেছে জেলা উত্তর যুবদল।

কোতয়ালী মডেল থানার ওসি মাহমুদুল হাসান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, এ ঘটনায় মহানগর যুবদলের সাধারন সম্পাদক জোবায়ের হোসেন শাকিলসহ ৫ নেতা-কর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

নিজস্ব প্রতিবেদক : নারায়ণগঞ্জে পুলিশের সঙ্গে জেলা ও মহানগর যুবদল নেতাকর্মীদের সংঘর্ষ হয়েছে। এতে অন্তত ২০ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন বলে যুবদল নেতারা দাবি করেছেন। খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবি ও যুবদলের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে র‌্যালি করতে গেলে রবিবার (২৭ অক্টোবর) সকাল ১১টার দিকে নগরীর মণ্ডলপাড়া ও চাষাড়া প্রেস ক্লাবের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, রবিবার সকাল পৌনে ১১টায় নগরীর মণ্ডলপাড়া এলাকায় জেলা ও মহানগর যুবদলের একাংশের নেতাকর্মীরা যুবদলের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী এবং খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে একটি র‌্যালি বের করেন। র‌্যালিটি বঙ্গবন্ধু সড়কের ডিআইটি চত্বরের দিকে এগোতে থাকলে পুলিশ বাধা দেয়।

বাধা উপেক্ষা করে মিছিলটি সামনের দিকে এগোতে চাইলে পুলিশ লাঠিচার্জ করে। এসময় পুলিশের সঙ্গে নেতাকর্মীদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে। পুলিশ লাঠিচার্জ করে যুবদলের নেতাকর্মীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এই মিছিলে নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান উপস্থিত ছিলেন।

সাখাওয়াত হোসেন খান বলেন, ‘যুবদলের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে আমরা শান্তিপূর্ণ র‌্যালি করছিলাম, কিন্তু পুলিশ বিনা উসকানিতে আমাদের র‌্যালিতে লাঠিচার্জ করেছে। এতে আমাদের ২০ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে নারায়ণগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসাদুজ্জামান জানান, পুলিশের কাছে সংবাদ ছিল যুবদল নেতাকর্মীরা মিছিল থেকে গাড়ি ভাঙচুর করতে পারে। এ জন্য তাদের বাধা দেওয়া হয়েছে। পুলিশের বাধা উপেক্ষা করে তারা মিছিল করতে চাইলে পুলিশ মৃদু লাঠিচার্জ করে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

মাহমুদ রাসেল : ঢাকা দক্ষিন  সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসির)  তিনটির বেশি সভায় অনুপস্থিত থাকার কারণে ১৯ জন কাউন্সিলর এবং দুজন সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলরকে কারণ দর্শানোর নোটিশ (শোকজ) দিয়েছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন।

গত ২৩ অক্টোবর ডিএসসিসি সচিব স্বাক্ষরিত এক পত্রে এই আদেশ দেয়া হয় বলে রবিবার গণমাধ্যমকে জানান গণসংযোগ কর্মকর্তা উত্তম কুমার রায়।

আগামী সাত কার্যদিবসের মধ্যে কাউন্সিলরদের চিঠির জবাব দিতে বলা হয়েছে বলে জানান তিনি।

এর আগে একই কারণে করপোরেশনের ৯ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মমিনুল হক সাঈদকে শোকজ করে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন। কাউন্সিলরের জবাবে সন্তুষ্ট না হওয়ায় তাকে জনপ্রতিনিধির পদ থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) টানা তিন সাধারণ সভায় অনুপস্থিত থাকায় ১৪ কাউন্সিলরকে কারণ দর্শাতে বলা হয়েছে।

২০০৯ সালের সিটি করপোরেশন আইনে বলা হয়েছে, যুক্তিসঙ্গত কারণ ছাড়া সিটি করপোরেশনের পরপর তিনটি সভায় অনুপস্থিত থাকলে মেয়র ও কাউন্সিলরকে অপসারণ করা যাবে।

মাহমুদ রাসেল  : অবৈধভাবে সম্পদ অর্জনের অভিযোগে দায়ের করা মামলায় আলোচিত ঠিকাদার এস এম গোলাম কিবরিয়া (জিকে) শামীম ও ঢাকা মহানগর যুবলীগ দক্ষিণের বহিষ্কৃত সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদের সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

রিমান্ড শুনানি শেষে রোববার (২৭ অক্টোবর) ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতের ভারপ্রাপ্ত বিচারক আল মামুন এ আদেশ দেন।

এর আগে দুর্নীতি মামলায় তাদের গ্রেফতার দেখানোর আবেদন মঞ্জুর করেন আদালত।

এর আগে গত ২৩ অক্টোবর ঢাকা মহানগর আদালতে তাদের ১০ দিন করে রিমান্ড আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা। আদালত আসামিদের উপস্থিতিতে আগামী ২৭ অক্টোবর রিমান্ড শুনানির দিন ধার্য করেন।

এছাড়া ২২ অক্টোবর তাদের দুর্নীতি মামলায় গ্রেফতার দেখানোর আবেদন করেন তদন্তকারী কর্মকর্তা। আদালত তাদের উপস্থিতিতে শুনানির জন্য একই দিন ধার্য করেন।

জিকে শামীমের মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা দুদকের উপ-পরিচালক মো. সালাউদ্দিন ও খালেদের মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা দুদকের উপ-পরিচালক জাহাঙ্গীর আলম।

এর আগে গত ২১ অক্টোবর অবৈধভাবে সম্পদ অর্জনের অভিযোগে আলোচিত ঠিকাদার জিকে শামীম ও তার মায়ের বিরুদ্ধে ২৯৭ কোটি ৮ লাখ ৯৯ হাজার ৫৫১ টাকার মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। দুদক প্রধান কার্যালয়ের উপ-পরিচালক মোহাম্মদ সালাউদ্দিন বাদী হয়ে এ মামলা করেন।

অন্যদিকে, জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়ার বিরুদ্ধেও ৫ কোটি ৫৮ লাখ ১৫ হাজার ৮৫৯ টাকার মামলা করে দুদক।