কী কাজে প্রধানমন্ত্রীর কাছে গিয়েছিলেন ঢাবি আইন অনুষদ ছাত্রলীগ সভাপতি শুভ

প্রকাশিত হয়েছে

বাংলাদেশ ছাত্রলীগ আইন অনুষদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার দায়িত্ব পাওয়ার পর সাধারন ছাত্র-ছাত্রীর দাবির প্রেক্ষিতে বিভিন্ন কর্মসূচি হাতে নেন শরিফুল হাসান শুভ। দীর্ঘদিন ধরে তা বাস্তবায়নের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন শুভ।

শুভ বলেন, গত ৪ঠা জুলাই বাংলাদেশ ছাত্রলীগ এর সভাপতি পার্থী হিসেবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ পাই। সাক্ষাৎ এর বিনিময়ে সকল কার্জক্রম তথ্য তুলে ধরার। য সুযোগ হয় এবং উক্ত বিষয় গুলো মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমলে নেয় বলে আমার বিশ্বাস। তার এই ধারাবাহিকতায় সমস্ত তথ্য- উপাত্ত নিয়ে গত রবিবার (১৯/০৮/১৮) মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সাথে সাক্ষাৎ হয়।

তিনি জানান, আইন অনুষদ চত্বরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের ছাত্র থাকাকালীন সময়ের সংগ্রহকৃত সকল তথ্য ও উপাত্তের অনুলিপি মাননীয় নেত্রীর কাছে হস্তান্তর করা হয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ এর বর্তমান সংগ্রামী সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন এবং সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী ।

জাাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর জন্মশতবার্ষিকী, বর্তমান সরকারের ভিশন ২০২১ পূরণ ও আইন অনুষদের ১০০ বছর পূর্তি উপলক্ষে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর শেখ মুজিবুর রহমানের নামে “বঙ্গবন্ধু ল’ কমপ্লেক্স ” নির্মানের বিষয়টি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের অনুমোদন সাপেক্ষে স্থান নির্ধারণের জন্য আইন বিভাগের একাডেমিক কমিটির সভায় গৃহীত সিদ্ধান্ত অর্থাৎ “বঙ্গবন্ধু ল’ কমপ্লেক্স ” এর কাজ দ্রুত সম্পন্ন করেন নিম্নলিখিত প্রস্তাবনাগুলি বাস্তবায়নের জন্য মাননীয় নেত্রীর কাছে হস্থান্তর করা হয়ঃ-

১. “বঙ্গবন্ধু ল’ কমপ্লেক্স অর্থাৎ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন অনুষদকে একটি স্বয়ংসম্পূর্ণ আইন-শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসেবে দেশের শ্রেষ্ঠ আইনি শিক্ষাকেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলা।
২. কমপ্লেক্সের সকল শিক্ষার্থীর জন্য সমৃদ্ধ লাইব্রেরী(স্ক্যান/ফটোকপি ও অন্যান্য সুবিধাসহ,যা রাতেও উন্মুক্ত থাকবে), আইন বিষয়ক স্বনামধন্য জার্নালসমূহের সাবস্কিপশন, উন্নত ক্যাফেটেরিয়া, অডিটোরিয়াম, কমনরুম,গেমস রুম এবং শৌচাগারের সুবিধাসহ আন্তর্জাতিক মানের অবকাঠামো ও অন্যান্য সুবিধাদি নিশ্চিত করা।
৩. কমপ্লেক্স এ ” বঙ্গবন্ধু ল’ চেয়ার” প্রতিষ্ঠা করা এবং সাধারন ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে বঙ্গবন্ধু মেধাবৃত্তি প্রচলন করা।
৪. কমপ্লেক্সের সম্মুখভাগে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের একটি মূরাল স্থাপন।
৫. স্বতন্ত্র ইউনিট (“ঙ ইউনিট”) এর মাধ্যমে আইন অনুষদের জন্য নিজস্ব ব্যবস্থাপনা শিক্ষাথীদের ভর্তি কার্যক্রম সম্পাদন করবার উদ্যােগ গ্রহন।
৬. আইনের সাথে সংশ্লিষ্ট ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিদ্যমান অন্যান্য বিভাগ/ইনস্টিটিউটকে (যেমনঃক্রিমিনোলজি/ জেনোসাইড স্টাডিজ /ভিক্টিমোলজী এন্ড রেস্টোরেটিভ জাস্টিস / ল্যান্ড ল’) এই কমপ্লেক্সের সাথে একীভূত করবার পাশাপাশি নতুন বিভাগ ( যেমনঃ ফরেনসিক সাইন্স / সাইবার ক্রাইম এবং এডমিনিস্ট্রেটিভ ল’) উন্মুক্ত করবার মাধ্যমে আইনশিক্ষা কার্যক্রমের পূর্ণতা দেয়া।
৭. আইন শিক্ষার গুনগত মানোন্নয়নকল্পে এবং আন্তর্জার্তিক মানে উন্নীত করবার প্রয়াস হিসেবে নিয়মিত শিক্ষকদের পাশাপাশি আইন-পেশাজীবি( বিচারক ও আইনজীবী), বিদেশী বিশ্ববিদ্যালয়ের ও অন্যান্য বিশেষজ্ঞদের নিয়মিতভাবে আমন্ত্রণ ও তাদের অংশগ্রহণ নিশ্চিতকরন করা।
৮. দেশি এবং বিদেশী শিক্ষার্থীদের অধ্যয়ন/ গবেষণার উৎকর্ষ সাধনের জন্য মেধাভিত্তিক স্কলারশিপ স্কীম প্রনয়ন এবং বহুজাতিক কোম্পানির কর্পোরেট- সোশ্যাল রেসপন্সিবিলিটি আওতায়) একটি সমৃদ্ধ তহবিল গঠন ও সংরক্ষণ।
৯. নিয়মিত শিক্ষা কার্যক্রমের সাথে শিক্ষার্থীদের সহ- কার্যক্রম জোরদার করবার পাশাপাশি ল ক্লিনিক, মুট কোর্ট,লিগ্যাল ডিবেট, ল জার্নাল এবং পেশাগত উন্মেষের জন্য প্রয়োজনীয় আরও বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহন ; বিশেষ করে আইন বিষয়ক বিভিন্ন আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতা/ কনফারেন্সে শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহন নিশ্চিতকল্পে আইন অনুষদের এ্যালামনাই এবং বহুজাতিক কোম্পানির ( কর্পোরেট- সোশ্যাল রেসপন্সিবিলিটির আওতায়) সমন্বয়ে একটি সমৃদ্ধ তহবিল গঠন ও সংরক্ষণ।
১০.এই প্রতিষ্ঠানটিকে উপমহাদেশ তথা বিশ্বের অন্যতম সেরা আইন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করবার লক্ষে আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থাীদের আগমন, ভর্তি, অধ্যয়ন ও মানসম্মত আবাসন ব্যবস্থা নিশ্চিতকল্পে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহন।
১১. বিশ্বের সেরা আইন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলোর সাথে সমঝোতা স্মারক / চুক্তি সাক্ষর মাধ্যমে ক্রেডিটঃ ট্রান্সফার ও শিক্ষক – শিক্ষার্থীদের এক্সচেঞ্জ প্রোগ্রাম চালু করতে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহন।
১২. বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্ট এবং আইন মন্ত্রণালয়ের সাথে সমঝোতা- চুক্তির মাধ্যমে জুডিশিয়াল ক্লার্কশিপ স্কীম চালু করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাছাইকৃত সেরা আইন শিক্ষার্থীদেরকে সুপ্রীম কোর্টের বিচারপতিদের সাথে সরাসরি কাজ করবার সুযোগ প্রদানে উদ্যোগ গ্রহন।
১৩. জাতির পিতার আইন অনুষদের ছাত্র থাকাকালীন সকল তথ্য ও উপাত্তের কপি সংরক্ষণ।

দীর্ঘ ৭ মিনিট প্রধানমন্ত্রীর কাছে সমস্ত তথ্য উপাও তুলে ধরা হয়।

প্রধানমন্ত্রী সমস্ত তথ্য উপাত্ত খুব গুরুত্ব সহকারে গ্রহণ করেন। উক্ত বিষয়গুলো যাছাই–বাছাই পূবক ব্যবস্থা নিবেন বলে আশাবাদী।

এখানে মন্তব্য করুন

Calendder

আগষ্ট ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« জুলাই    
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  

এখানে বিজ্ঞাপন দিন

এখানে বিজ্ঞাপন দিন

%d bloggers like this: